মঞ্চে 'জনকের অনন্তযাত্রা' নাটক 

প্রকাশিত: ০৪:৫৬, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১

আপডেট: ০৪:৫৬, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১

বিনোদন ডেস্ক:  হাজার বছরের ঐতিহ্যের অনুসারী বাঙালী জাতির শ্রেষ্ঠ অর্জন হচ্ছে স্বাধীনতা। আর সেই স্বাধীনতা সংগ্রামে মহাকাব্যিক দ্যোতনা এবং নায়োকোচিত ঔজ্জ্বল্য নিয়ে যে বাঙালী মহানায়ক ভাস্বর হয়ে আছেন, তিনি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির প্রযোজনায় আসছে নতুন নাটক। নাট্যকার মাসুম রেজার পরিচালনায় এই নাটকে তুলে ধরা হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর তার মরদেহ যখন টুঙ্গিপাড়ায় নিয়ে যাওয়া হয় সেই সময়ের কিছু ঘটনা। নাটকের নাম 'জনকের অনন্তযাত্রা'।

এ প্রসঙ্গে নাট্যকার ও নির্দেশক মাসুম রেজা বলেন, এই নাটকটি আমার কাছে সত্যাশ্রয়ী গল্প কিংবা গল্পাশ্রয়ী সত্য। দীর্ঘদিন ধরে গবেষণার মাধ্যমে মঞ্চে এসেছে নাটকটি। এ ঘটনায় যারা সরাসরি উপস্থিত ছিলেন তাদের অনেকের ভিডিও ও লিখিত সাক্ষাতকার দেখেছি। বঙ্গবন্ধুকে দাফনের দায়িত্ব পড়েছিল মেজর হায়দার আলীর কাঁধে। একটি বইয়ে এ বিষয়ে তার লেখা আছে। তবে নাটকটি লেখার চেয়ে চ্যালেঞ্জিং ছিল মঞ্চে আনা। আমার কাছে মনে হয়, ইতিহাস বিকৃতির চেয়ে ভয়ংকর ইতিহাসের বিস্মৃতি। বঙ্গবন্ধুর দাফনের বিষয়টি সামনে এলেই মানুষের মনে শুধু ৫৭০ সাবান দিয়ে গোসলের বিষয়টি আসে। কিন্তু তাকে দাফনের জন্য যখন টুঙ্গিপাড়ায় নিয়ে যাওয়া হয় তখন এতসব ঘটনা ঘটেছিল গবেষণা না করলে জানতেও পারতাম না। আড়ালে থেকে যাওয়া সেই ঘটনাটিই মেলে ধরেছি নাটকটিতে। এমন রিয়েলিস্টিক গল্পকে মঞ্চের ভাষায় উপস্থাপন করা ছিল দুরূহ কাজ। ঘটনাটি দুই-তিনটি জায়গায় ঘটেছিল। সেগুলোর জন্য সেভাবে সেট তৈরি করতে হয়েছে। পাশাপাশি চাওয়া ছিল প্রত্যেক শিল্পী যেন রিয়েলিস্টিক অভিনয় করেন।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি প্রযোজিত নাটকটির উদ্বোধনী মঞ্চায়ন হয় শনিবার সন্ধ্যায়। আজ রবিবার সন্ধ্যায় একই ভেন্যু একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে নাটকটির দ্বিতীয় প্রদর্শনী হবে। প্রযোজনাটির উপদেষ্টা শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।

নাটকটিতে অভিনয় করেছেন দেশের বিভিন্ন নাট্যদলের প্রথম সারির বেশ কয়েকটি নাট্যদলের সদস্যরা। এর মধ্যে আছেন আজিজুল হাকিম, মুনিরা ইউসুফ মেমী, কামাল বায়েজিদ, সায়েম সামাদ, শামছি আরা সায়েকা, রামিজ রাজু প্রমুখ। এই নাটকের মাধ্যমে অনেক দিন পর মঞ্চে ফিরেছেন আজিজুল হাকিম, মুনিরা ইউসুফ মেমী ও কামাল বায়েজিদ। বঙ্গবন্ধুর দাফন যেন শরিয়ত মোতাবেক হয়, তার জন্য প্রথম প্রতিবাদ করেন টুঙ্গিপাড়ার মাওলানা আবদুল হালিম। সেই চরিত্রে অভিনয় করেছেন আজিজুল হাকিম। তার স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেমী। খন্দকার মোশতাকের চরিত্রে অভিনয় করেছেন কামাল বায়েজিদ। নাটকের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র কর্নেল রউফের চরিত্রে অভিনয় করেছেন সায়েম সামাদ। এছাড়া অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন সৈয়দা শামছি আরা সায়েকা, সাজ্জাদ আহমেদ, খন্দকার তাজমি নূর প্রমুখ।

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *

loading...
loading...