কোথাও নেই বিধিনিষেধের প্রতিফলন

প্রকাশিত: ১৪-০১-২০২২ ১০:১৪

আপডেট: ২৫-০১-২০২২ ০৯:৫৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে জীবনযাত্রায় আবারো বিধিনিষেধ আরোপ করা হলেও মাস্ক পরাসহ নির্দেশনা মেনে চলায় উদাসীনতা রয়েছে নাগরিকদের। আজ শুক্রবার (১৪ই জানুয়ারি) সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় আজ রাস্তায় লোকজন ও যানবাহন কিছুটা কম থাকলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না।

যাত্রীদের বেশিরভাগের মুখেই নেই কোনো মাস্ক। দ্বিতীয় দিনেও বিধিনিষেধ কার্যকরে রাজধানীতে প্রশাসনের তৎপরতা চোখে পরেনি। গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী বহনের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে সরকার। মালিকদের দাবির প্রেক্ষিতে শনিবার থেকে যত আসন তত যাত্রী পরিবহন করা হবে।

এদিকে, টিকা নিয়ে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে করোনা নিয়ন্ত্রণে এসেছে- এমন ভাবনায় যখন খানিকটা স্বস্তির নি:শ্বাস পাওয়া যাচ্ছিল, ঠিক তখনই করোনার নতুন ধরণ ওমিক্রন সব হিসাব পাল্টে দিলো। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশে সংক্রমণের সংখ্যা যেমন হাজার পেরোলো, তেমনি মৃত্যুর সংখ্যাও ছাড়ালো দশয়ের ঘর। এখনই এই রেশ টেনে না ধরলে সামনের দিনগুলোতে সংক্রমণ আরো বাড়বে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

এই চিত্র শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর নিউমার্কেটের। করোনার নতুন ধরণ ওমিক্রন ঠেকাতে সরকারি বিধিনিষেধ কতোটা মানছেন সাধারণ মানুষ ? হাত ধোঁয়া বা স্যানিটাইজ ব্যবহার করা তো দূরের কথা, একজনের থেকে আরেকজনের সামান্য দূরত্বও কেউ মানছেন না। মাস্ক আছে। তবে তা কারো থুতনিতে, কারো গলায় ঝুলছে, কারো বা পকেটে।

বিক্রেতারা বলছেন, করোনার সঙ্গে মানিয়ে নেয়া হয়েছে। জীবিকার প্রয়োজনে ঘরের বাইরে যেতেই হবে। যতোটা সম্ভব নিজেরা এবং ক্রেতারা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন বলে জানান তারা।

এদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেয়া তথ্যে দেখা যায়, এবছরের ৫ই জানুয়ারি করোনায় দৈনিক শনাক্ত ছিলো ৮৯২। এক সপ্তাহে বেড়ে তা হয়েছে ৩ হাজার ৩৫৯। তেমনি মৃত্যুও একসপ্তাহে বেড়েছে। ওমিক্রনের পাশাপাশি ডেল্টার কারণেই এই সংক্রমণ বাড়ছে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

/admiin