ডেঙ্গু থেকে দ্রুত আরোগ্য লাভের উপায়

প্রকাশিত: ১৯-০৫-২০২২ ১৩:০২

আপডেট: ১৯-০৫-২০২২ ১৩:০২

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রতিদিন শত শত রোগী ডেঙ্গু রোগের উপসর্গ নিয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। ডেঙ্গুর সাধারণ লক্ষণ অন্যান্য ভাইরাল রোগের মতোই। ডেঙ্গু একটি ভাইরাল সংক্রমণ। শুধুমাত্র স্ত্রী এডিস ইজিপ্টি মশাই ডেঙ্গু ভাইরাস ছড়াতে পারে। ডেঙ্গু দেহের রক্তনালীগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে দেহে প্লেটলেট সংখ্যাও কমে যায়। 

সাধারণত ডেঙ্গু জ্বর হলে চিকিৎসকেরা সারা দিনে অন্তত আড়াই লিটার থেকে তিন লিটার পানি পান করার পরামর্শ দেন। জ্বর হলে পানি পান করতে অনেকেরই ইচ্ছে হয় না। তাই পানির চাহিদা পূরণ করতে পানির সঙ্গে ফলের রস (কেনা জুস নয়, বাড়িতে করা রস), ডাবের পানি যোগ করুন। 

বিভিন্ন ধরেনে ফলের রস ।ফলের রসে ভিটামিন সি আছে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। মাল্টা, কমলা, লেবু, পেয়ারা, কিউই, স্ট্রবেরি, পেঁপে, আনার বা ডালিম ইত্যাদি খেতে হবে। এসব ফলে জলীয় অংশ অনেক। তা ছাড়া রুচি বাড়াতেও সাহায্য করবে। ডাবের পানিতে খনিজ বা ইলেট্রোলাইটস আছে, যা ডেঙ্গু জ্বরে খুবই দরকারি।

ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে ডাক্তাররা প্রাথমিক পর্যায়ে প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দেন। ডেঙ্গু জ্বর হলে বেশি করে তরল খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। মাড়ির গোড়া থেকে রক্তপাত না হলে বুঝতে হবে জ্বর গুরুতর নয়। শরীরের কোন অংশে তীব্র ব্যথা না থাকলে, আপনি ডাক্তারের কাছে যাওয়া বা হাসপাতালে যাওয়া এড়িয়ে যেতে পারেন। জ্বর গুরুতর না হলে বাড়িতে প্যারাসিটামল খান। বেশি করে তরল খাবার খেতে থাকুন।

বিভিন্ন ধরনের সবজি থেঁতো করে জুস করে খেলে খুবই উপকার হবে। গাজর, টমেটো, শসা ইত্যাদি সবজি বেশি করে খেতে দিন। কেননা এতে জলীয় অংশ বেশি। ব্রকোলি ভিটামিন কে এর উৎস, যা ডেঙ্গুতে রক্তপাতের ঝুঁকি কমায়। খেতে হবে নানা ধরনের শাকও।

ডেঙ্গু রোগীকে প্রতিদিন নানা ধরনের স্যুপ, যেমন সবজির স্যুপ, টমেটোর স্যুপ, চিকেন স্যুপ বা কর্ন স্যুপ দিন। এতে পানির চাহিদা পূরণ হবে, পাশাপাশি পুষ্টিও নিশ্চিত হবে। এছাড়া নরম সেদ্ধ করা খাবার, জাউ, পরিজ ইত্যাদি খেতে পারেন।

ডেঙ্গু জ্বরের সঙ্গে জটিল উপসর্গ দেখা দিলে অতি দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এ ছাড়া ডেঙ্গু জ্বর হলে রোগীর খাদ্যাভ্যাসের দিকেও বিশেষ নজর দিতে হবে। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীদের নিয়মিত বেশ কিছু স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন অভিজ্ঞ চিকিৎসকরা।

mina/sharif