হাসপাতালে অব্যবস্থাপনা, দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য

প্রকাশিত: ২৮-০৫-২০২২ ০৮:৪৮

আপডেট: ২৮-০৫-২০২২ ১৫:৩৫

পাবনা সংবাদদাতা: নানাবিধ অব্যবস্থাপনায় বিঘ্নত হচ্ছে পাবনা জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা। রোগ নির্ণয়ে হাসপাতালটিতে আধুনিক যন্ত্রপাতি থাকলেও অধিকাংশ স্বাস্থ্যপরীক্ষাই বন্ধ। সেইসাথে রয়েছে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ ও দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য। ফলে প্রতিনিয়ত ভোগান্তিতে পড়ছেন রোগীরা।  

পাবনা জেলার প্রায় ৩০ লাখ মানুষের চিকিৎসায় বড় ভরসা ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট পাবনা জেনারেল হাসপাতাল। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই প্রতিষ্ঠানটিতেই মেলেনা কাঙ্খিত সেবা। রোগী ও স্বজনদের অভিযোগ চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যসেবাকর্মীদের একাংশ হাসপাতালে উপস্থিত থাকেন না। প্রশাসন ও চিকিৎসকদের দ্বন্দ্ব ও স্থানীয় প্রভাব খাটিয়ে দায়িত্বে অবহেলা করছেন তারা। হাসপাতালের ভেতরেই গড়ে উঠেছে ওষুধের অবৈধ দোকান। প্রতিবাদ করলে স্বাস্থ্যকর্মী ও বহিরাগত দালালদের হাতে লাঞ্ছনার শিকারও হয়েছেন অনেকে। 

সম্প্রতি নিজেদের দ্বন্দ্বে হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ওমর ফারুক মীরকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে সিনিয়র চিকিৎসকদের একটি অংশ। অন্যদিকে, আন্দোলনকারী চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগ ওঠে। তাদের পরস্পর বিরোধী অবস্থানে স্থবিরতা নেমে এসেছে চিকিৎসা কার্যক্রমে। হাসপাতালটিতে রোগ নির্ণয়ে আধুনিক সিটি স্ক্যান, এক্সরে, ইসিজি মেশিন থাকলেও তা বন্ধ রয়েছে। যদিও এর কারণ অজানা। 

হাসপাতালের সহকারী পরিচালক জানালেন, প্রয়োজনীয় জনবল না থাকায় কাঙ্খিত সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালের স্বাস্থ্য সেবায় শৃংখলা ফেরাতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ চায় পাবনাবাসী।

MHS/ramen