হলি আর্টিজানে হামলা: হাইকোর্টে মামলা ঝুলছে ৩ বছর

প্রকাশিত: ০১-০৭-২০২২ ১৫:৩৩

আপডেট: ০১-০৭-২০২২ ১৬:২৭

এজাজুল হক মুকুল: গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার মামলার শুনানি হাইকোর্টে তিন বছরেও শুরু হয়নি। ২০১৯ সালের ২৭শে নভেম্বর ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনাল এই মামলায় ৭ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা হাইকোর্টে আপিল করে। অ্যাটর্নি জেনারেল আমিনউদ্দিন জানিয়েছেন, করোনার কারণে দেরি হয়েছে, এখন দ্রুত শুনানির উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। 

পহেলা জুলাই ২০১৬, এক নির্মম জঙ্গি হামলা হয় বাংলাদেশে। রাজধানীর অভিজাত এলাকা গুলশানের ৭৯ নম্বর সড়কের হলি আর্টিজান বেকারিতে রাতে আচমকা হামলা চালায় ৫ জঙ্গি। ওই হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা, নয় ইতালিয়ান, ৭ জাপানি নাগরিকসহ নিহত হন ২২ জন। রাতভর আতঙ্কের পর কমান্ডো অভিযানে নিহত হয় ওই পাঁচ জঙ্গিও। অন্তত ৩৫ জিম্মিকে উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনার মামলার তদন্তভার পায় পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। হামলায় ২১ জনের সম্পৃক্ততা পায় তারা। এর মধ্যে ৫ জঙ্গি ঘটনা স্থলেই মারা যায়। বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয় আরও আটজন। বাকি ৮ জনকে আসামি করে ২০১৮’র মাঝামাঝি আদালতে অভিযোগপত্র দেয় সংস্থাটি। প্রায় দেড় বছর বিচার কাজ শেষে ২০১৯ সালে ৭ জনকে মৃত্যুদÐ দেয় ঢাকা সন্ত্রস বিরোধী ট্রইব্যুনাল।

রায়ের পর আসামিদের সকলেই জেল আপিল করেন আর খালাস পাওয়া মিজানের বিরুদ্ধে আপিল করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। উচ্চ আদালতে শুনানির জন্য মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামিদের পেপারবুক তৈরি হয়েছে। যা হাইকোর্টে উপস্থাপনের অপেক্ষায় বলে জানালেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, বর্তমানে যেসব জঙ্গি সংগঠন রয়েছে সেগুলোর বড় ধরনের হামলা করার কোন সক্ষমতা নেই। উচ্চ আদালতের রায় অপরাধীদের সঠিক বিচার হবে বলে আশা প্রকাশ করেন কর্মকর্তারা।

EHM/sharif