বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর উন্নয়ন থেমে গিয়েছিলো- প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ০১-০৮-২০২২ ১৩:১৯

আপডেট: ০১-০৮-২০২২ ১৭:১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক:  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে দিয়েছিলো অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীরা। গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে দেশকে সম্পূর্ণ পরনির্ভরশীল করে দিয়েছিলো। আওয়ামী লীগ প্রকৃত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। 

কৃষক লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনায় এসব বলেন তিনি। ভবিষ্যতে যাতে কোন বিপদের মুখে পড়তে না হয় সেজন্যই আগাম ব্যবস্থা হিসেবে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। 

১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে আলোচনাসভা এবং সেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে  অনুষ্ঠানে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাঙ্গালীর ভাগ্যউন্নয়নের জন্যই জীবন উৎসর্গ করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। অথচ কি দুর্ভাগ্য তাকে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়। খুব পরিকল্পিতভাবে ঘাতকরা দেশে এবং আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে অপপ্রচার চালিয়ে বঙ্গবন্ধুকে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র করেছিলো। তাকে হত্যার পর দেশের আর কোন উন্নয়ই হয়নি। বরং জোড় করে ক্ষমতাদখলকারী মিলিটারি শাসকরা দেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে দিয়েছিলো।

আওয়ামী লীগ দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট থেকে যে দলের জন্ম তাদের কাছে এখন নীতি কথা শুনতে হয়। দেশবাসীকে এসব অপপ্রচার কারীদের দিকে দৃষ্টি দেয়ার আহ্বানও জানান প্রধানমন্ত্রী।

বৈশ্বিক এই পরিস্থিতিতেও সরকার সব রকমের ব্যবস্থা নিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাশ্রয়ী হওয়ার কথা বলে সরকার আগাম ব্যবস্থা নিচ্ছে।

দেশের মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়ন হলেই বাঙ্গালীর সত্যিকারের স্বাধীনতা আসবে। তাই দলের নেতাকর্মীদের দেশের জনগনের জন্য নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ কারার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

 

 

rocky/prabir