সংকটের মুখে মাছ শিকারের হাতিয়ার তৈরির শিল্প

প্রকাশিত: ০৩-০৮-২০২২ ০৯:১৪

আপডেট: ০৩-০৮-২০২২ ১০:২৩

নাটোর সংবাদদাতা: নাটোরের নদী খাল বিলে নতুন পানিতে দেখা মিলছে দেশি নানান জাতের মাছের। আর সে সব মাছ শিকারের জন্য বাঁশবেত দিয়ে বিভিন্ন উপকরণ তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। কয়েকটি গ্রামের অন্তত ৫ শতাধিক পরিবার তৈরি করেন এসব উপকরণ। তবে অবৈধ মাছ ধরার সামগ্রির প্রভাবে পরিবেশ বান্ধব এসব উপকরণ হারিয়ে যেতে বসেছে। তবে এই শিল্প সচল রাখতে প্রনোদনাসহ ঋণ সহায়তা প্রদানের আশ্বাস দিলেন বিসিকের কর্মকর্তারা।

নাটোরের বড়াইগ্রামের জোনাইল ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের অন্তত ৫ শতাধিক পরিবার বর্ষকালে বাঁশ, বেত, তালের ডাগরের আঁশসহ বিভিন্ন সামগ্রি দিয়ে তৈরি করেন মাছ ধরার এসব উপকরণ। খালবিলে নতুন পানি আসলে বেড়ে যায় এর সাথে জড়িত কারিগরদের কর্ম তৎপরতা। তবে কারেন্টজালসহ নানা উপায়ে অবৈধ ভাবে মাছ শিকার করায় মাছের বংশ বৃদ্ধিতে যেমন বিরূপ প্রভাব পড়ছে তেমনি হারিয়ে যাচ্ছে মাছ ধরার বাঁশ বেতের উপকরণ নির্মাণের শিল্পটি।

এছাড়া এসব সামগ্রি তৈরির উপকরণের দাম বেড়ে যাওয়ায় খরচ পড়ছে বেশি। ফলে এসব উপকরণ বিক্রি করে উৎপাদন খরচও উঠছে না।

বাঁশ, বেত নির্ভর এই শিল্পকে বাঁচাতে সবধরনের সহযোগীতার আশ্বাস দিলেন নাটোর দত্তপাড়া বিসিকের উপ-ব্যবস্থাপক দিলরুবা দীপ্তি।

এই খাতে নাটোর জেলায় প্রতি বর্ষায় ১০ কোটি টাকার মাছ ধরার উপকরণ বেচা কেনা হয় বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

 

MNU/joy