চীন ও আমেরিকার উত্তেজনা তুঙ্গে

প্রকাশিত: ০৩-০৮-২০২২ ২০:১৯

আপডেট: ০৩-০৮-২০২২ ২০:১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মার্কিন কংগ্রেসের নিম্ন কক্ষের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরকে ঘিরে উত্তেজনার পারদ বেড়েই চলেছে। তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েনের সাথে বৈঠক করেছেন ন্যান্সি পেলোসি। আশ্বস্ত করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র সবসময়ই পাশে থাকবে। তাইওয়ানের আত্মরক্ষার অধিকারকেও সমর্থন জানান পেলোসি। এসময় তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট জানান, তার দেশ বড় ধরনের সামরিক হুমকির মুখে রয়েছে। এদিকে, এই সফরকে ঘিরে ক্ষুব্ধ চীন। মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে তলব করে সতর্ক করে দিয়েছে। তাইওয়ানের পূর্ব সীমান্তে সামরিক মহড়াও চালাচ্ছে।

ন্যাটো আর রাশিয়ার বিবাদে পশ্চিমে উইক্রেন পরিণত হয়েছে রণাঙ্গনে। আর এরই মধ্যে চীনের হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরকে ঘিরে উত্তেজনার পারদ বেড়েছে। মুখোমুখি অবস্থানে দাঁড়িয়েছে বিশ্বের দুই পরাশক্তি আমেরিকা ও চীন।

এরই মধ্যে তাইওয়ানের চারদিক ঘিরে বিমান ও নৌমহড়া শুরু করেছেচীন। প্রয়োজনে সামরিক অভিযান চালানোর কথাও জানিয়েছে। সব মিলিয়ে অনেকটা  যুদ্ধের দামামা বাজার মত পরিস্থিতি।

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েন বলেছেন, তার দেশ বড় ধরনের সামরিক হুমকির মুখে রয়েছে। তবে তাইওয়ানও পিছু হটবে না বলে জানিয়েছেন তিনি। ন্যান্সি পেলোসির সাথে বৈঠক শেষে এসব কথা বলেন সাই ইং ওয়েন।

মঙ্গলবার রাতে তাইওয়ানে পৌঁছানোর পর বুধবার সকালে সেদেশের পার্লামেন্টে যান ন্যান্সি  পেলোসি। পরে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েনের সাথে বৈঠক করেন। এসময় পেলোসি বলেন, এই অঞ্চলের শান্তির জন্যই তার এই সফর। যুক্তরাষ্ট্র কখনও তাইওয়ানকে ছেড়ে যাবে না বলেও জানান পেলোসি।

এই ইস্যুতে চীনের পক্ষ নিয়েছে রাশিয়া। তারা বলছে, পেলোসির তাইওয়ান সফর একটি উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড। সার্বভৌমত্ব রক্ষায়ব্যবস্থা নেয়ার অধিকার রয়েছে চীনের। উত্তর কোরিয়াও বেইজিংয়ের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছে। তবে, আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার আহŸান জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া।

 

SAI/shimul