নানা অজুহাতে বাসে এখনো বাড়তি ভাড়া

প্রকাশিত: ১৪-০৮-২০২২ ২১:২৫

আপডেট: ১৪-০৮-২০২২ ২২:১৫

মাবুদ আজমী: বন্ধের ঘোষণা দেয়া হলেও, রাজধানীর গণপরিবহনে এখনো চলছে চেকিং ও ওয়েবিল প্রথা। নামে বেনামে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে এই প্রথা চালু রেখেছেন বাস মালিকরা। আবার অনেক গণপরিবহনে এখনও নেই ভাড়ার তালিকা। ইচ্ছেমত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ যাত্রীদের।

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর গণপরিবহনে ভাড়া বাড়িয়ে দেয় সরকার। সেইসাথে গণপরিবহনে অবৈধভাবে চলে আসা ওয়েবিল ও চেকিং পদ্ধতি বন্ধ করার ঘোষণা দেয় বাস মালিকরা। 

এই ঘোষণা পর পেরিয়ে গেছে চার দিন। কিন্তু রাজধানীর বেশিরভাগ গণপরিবহনে সবকিছু উপেক্ষা করে অবাধেই চলছে ওয়েবিল ও চেকিং কার্যক্রম। কেন এই কার্যক্রম চালাচ্ছে, তার কোন সদুত্তর নেই শ্রমিকদের কাছে। তাদের দাবি মালিকদের নির্দেশে তারা এখনো চেকিং কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। 

রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে ওয়েবিল অনুসারে যাত্রীদের কাছে ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। চেকার উঠে যাত্রীদের সংখ্যা দেখে নির্ধারিত খাতায় লিখছে। তবে তারা বলছেন, সড়কের নিরাপত্তা কিংবা শৃঙ্খলা বজায় রাখার বিষয়টি তদারকি করছেন তারা। 

নগরীর গণপরিবহনে নতুন ভাড়ার তালিকা টানানো হলেও, নেয়া হচ্ছে বেশি ভাড়া। অনেক বাসে নেই ভাড়ার তালিকাও। ইচ্ছেমত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

এদিকে গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরাতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে বিআরটিএ। অনিয়ম ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিআরটিএর কর্মকর্তারা।

 

AKA/shimul