শরীয়তপুরে পাসপোর্ট অফিসে দালালদের দৌরাত্ম্য

প্রকাশিত: ১৭-০৮-২০২২ ০৯:১৪

আপডেট: ১৭-০৮-২০২২ ০৯:৪০

শরীয়তপুর সংবাদদাতা: শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে প্রতিনিয়ত হয়রানীর শিকার হচ্ছে সেবাপ্রার্থীরা। তাদের অভিযোগ পাসপোর্ট অফিস ঘিরে দালালদের দৌরাত্ম্য চরমে পৌঁছেছে। সেইসাথে রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে সাধারণ সেবাপ্রার্থীরা নিয়মিত হয়রানির শিকার হয়।

দেখে অস্বাভাবিক কিছু মনে না হলেও, পাসপোর্টের আবেদন ফরমে বিশেষ এই চিহ্নের আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। এই চিহ্ন দেখেই পাসপোর্ট অফিসের কর্মীরা বুঝবেন কোন আবেদন ফর্মটি দালালদের মাধ্যমে এসেছে। সেই আবেদনটি তখন বিশেষ সুবিধা পায়। কারো কাছে যাতে ধরা না পড়ে, সেজন্য ব্যবহার করা হয় আলাদা আলাদা চিহ্ন। অভিনব এই উপায়ে দালালরা কার্যক্রম চালাচ্ছে শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে।

অভিযোগ রয়েছে, বিশেষ চিহ্ন না থাকলে সেই আবেদন ফর্ম নানা অজুহাতে গ্রহণ করা হয়না। পরে আবার দালালদের মাধ্যমে আসলে ঠিকই গ্রহণ করে পাসপোর্ট অফিস।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, লাইনে দাঁড়িয়ে দীর্ঘ অপেক্ষাসহ পাসপোর্টের জন্য আবেদনের প্রতিটি ধাপেই ভোগান্তি পোহাতে হয়। শরীয়তপুরের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে প্রতিদিন গড়ে শতাধিক ফাইল জমা হয়। প্রতিটি ফাইলে দালালকে দিতে হয় ২ থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত।প্রতিদিনকয়েক লাখ টাকার ঘুষ বাণিজ্য হয় এই আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস ঘিরে।

এমন হয়রানির ঘটনা চলছে জেনেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। উল্টো দায়সারা জবাব দিলেন আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারি পরিচালক সাদ্দাম হোসেন।

শরীয়তপুর জেলার অনেকেই প্রবাসে থাকেন, পাসপোর্ট নবায়নে ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাদেরও। তাই নবায়ন ও নতুন পাসপোর্ট প্রদানে সবধরনের হয়রানি বন্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি স্থানীয়দের। 

 

afroza/joy