নাটোরের হালতিবিল, মুগ্ধ করা জলরাশি

প্রকাশিত: ১৭-০৮-২০২২ ১০:৩৩

আপডেট: ১৭-০৮-২০২২ ১০:৩৩

নাটোর সংবাদদাতা: প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের শোভা ছড়াচ্ছে নাটোরের মিনি 'কক্সবাজার' খ্যাত হালতিবিল। প্রতিদিনই বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসছেন দর্শনার্থীরা। ছুটির দিনে ভ্রমণপিয়াসী মানুষের ঢল নামে অথৈ জলরাশির মনোমুগ্ধকর এই জলাশয়ে। তবে ভাঙ্গাচোরা রাস্তা-ঘাট আর স্যানিটেশন ব্যবস্থার অপ্রতুলতা নিয়ে অভিযোগ রয়েছে দর্শনার্থীদের। সমস্যাগুলো সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন।

অপরূপ এই দৃশ্য নাটোরের হালতিবিলের। দুই পাশে অথৈ জলরাশি আর তার মাঝে ডুবন্ত সড়ক। যেখানে সমুদ্র সৈকতের আমেজ উপভোগ করেন দর্শনার্থীরা। রং বেরঙের নৌকায় ঘুরে বেড়ান। সড়কের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া শীতল পানিতে পা ভিজিয়ে কেউ হেঁটে বেড়ান, কেউবা পানির বুক চিরে মোটরসাইকেল চালিয়ে ছুটে যান। চলে সুর্যোদয় ও সূর্যাস্ত উপভোগ।

নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার হালতিবিল দর্শনার্থীদের পদচারনায় প্রতিদিনই মুখরিত হয়। ছুটির দিনগুলোয় ভিড় আরও বাড়ে। পরিবার-পরিজন নিয়ে নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করেন পর্যটকরা। তবে, রাস্তাঘাট ভালো না থাকায় ও নিরাপদ স্যানিটেশন ব্যবস্থার অভাবে সমস্যা হয়।

এদিকে, খরা ও বৃষ্টি কম হওয়ায় এ বছর অন্যান্য বারের তুলনায় বিলে পানি কম। ফলে আয় রেজগার কমে গেছে নৌকার মাঝি ও শ্রমিকদের।

অন্যদিকে, হালতি বিলের সৌন্দর্য্য বাড়ানোর পাশাপাশি সড়ক উন্নয়নে পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানালেন  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুখময় সরকার।

বছরের ৪ থেকে ৫ মাস পানি থাকে হালতি বিলে। শুকনো মৌসুমে এই বিলের দৃশ্যপট সম্পূর্ণ বদলে যায়। 

 

MBK/joy