ভারতের সাথে জ্বালানি সহযোগিতা বাড়াতে চায় বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ০২-০৯-২০২২ ১৪:১৮

আপডেট: ০২-০৯-২০২২ ১৬:৪৮

মুক্তা মাহমুদ: ভারতের সঙ্গে দীর্ঘ মেয়াদে জ্বালানি ও বাণিজ্য সহযোগিতা বাড়াতে আগ্রহী বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন্ন ভারত সফরে দু’দেশের মধ্যে বহুমুখী যোগাযোগ, অভিন্ন নদীর পানি বন্টন, বাণিজ্য ও নিত্যপণ্যের সরবরাহে সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর জোর দিচ্ছে ঢাকা। কূটনীতিকরা বলছেন, দেশের মানুষের আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে নতুন কী পাওয়া যাবে তা নিয়ে, কারণ তারা দু’দেশের সুষম সম্পর্ক দেখতে চায়।

২০১৯ সালের অক্টোবরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবশেষ ভারত সফর করেন। এরপর আগামী ৫ই সেপ্টেম্বর তিন দিনের সফরে ভারত যাচ্ছেন তিনি। আর এর মধ্যে মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২০২১ সালের মার্চে সর্বশেষ বাংলাদেশ সফর করেন। রাজনৈতিক গুরুত্ব ছাড়াও বর্তমান বৈশি^ক প্রেক্ষাপটে ও অর্থনৈতিক সহযোগিতার দিক থেকে থেকেও এবারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর বেশ গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন ক’টনীতিকরা। 

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও জ্বালানি সংকটে পড়েছে। এই সফরে ভারতের সংগে জ্বালানি, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানান পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। 

বাংলাদেশ অভিন্ন নদীর পনি বন্টন বিষয়টি তুলে ধরবে, তবে তিস্তা চুক্তি নিয়ে আপাতত কোন আশা নেই। সাবেক পররাষ্ট্র সচিব তৌহিদ হোসেন মনে করেন, ভারতের কাছ থেকে বাংলাদেশের এখন পাবার অনেক কিছু আছে। তিনি বলেন, দু’দেশের সম্পর্কে বিব্রতকর বিষয়গুলো প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে কতটা সুরাহা হয় সেটাই প্রশ্ন। 

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা বলেন, নিকট প্রতিবেশী হিসেবে দুই দেশই তাদের প্রয়োজন ও সম্পর্কের বোঝাপড়ায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ আশা করে মানুষ। 

Mukta/sharif