বান্দরবানে চাষ হচ্ছে ব্রাজিলের সুমিষ্ট ফল

প্রকাশিত: ১৪-০৯-২০২২ ০৮:৩৬

আপডেট: ১৪-০৯-২০২২ ০৯:৫৮

বান্দরবান  সংবাদদাতা: ব্রাজিলের ফল জাপাটিকাবা চাষ হচ্ছে বান্দরবানের পাহাড়ে। রসালো, মিষ্টি ও ওষুধি গুণসম্পন্ন এই ফলটি পোক্ত হতে সময় লাগে এক থেকে দেড় মাস। কৃষি বিভাগ বলছে, পাহাড়ের বিভিন্ন এলাকায় এই ফলের চাষ বাড়ানোর সুযোগ আছে। এতে অনেকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবে। 

গাছে থোকায় থোকায় ধরেছে ভিনদেশি এই ফল। কাঁচা অবস্থায় দেখতে অনেকটা লটকন বা ডুমুরের মতো। আর পাকলে হয় কালো আঙ্গুর বা জামের মতো। এটি ব্রাজিলের সুস্বাদু ফল জাপাটিকাবা। ওষুধি গুণসম্পন্ন ব্রাজিলের ফলটি এখন বান্দরবানের হর্টিকালচার সেন্টারে চাষ হচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, উন্নত জাতের ফলের চাষ বাড়াতে ব্রাজিল থেকে আনা হয় এই ফলের বীজ। ২০১৫ সালে বান্দরবান হর্টিকালচার সেন্টারে ৪টি জাপাটিকাবা গাছ রোপন করা হয়। ৮ বছর পর প্রথম সংগ্রহ করা হয়েছে কয়েক কেজি ফল। নতুন ধরনের ফলের খবরে অনেকেই এই গাছ আর ফল দেখতে ভীড় করছে হটিকালচার সেন্টারে।

বিদেশি এই ফলের চাষ বাড়াতে বাণিজ্যিকভাবে বাগান করা গেলে আগামীতে পুষ্টির সাথে সাথে কৃষকদের আর্থিক উন্নয়ন হবে বলে আশা করছে কৃষি কর্মকর্তারা। পার্বত্য জেলার মাটি ও আবহাওয়া জাপাটিকাবা চাষের উপযোগী হওয়ায় এর সম্প্রসারণে বীজ সংগ্রহ করে বিক্রি করা হচ্ছে তিন পার্বত্য জেলার বাগানিদের কাছে। 

MBK/sharif