পানি পরিশোধনে ব্যর্থ ঢাকা ওয়াসা

প্রকাশিত: ২০-০৯-২০২২ ১৪:১৫

আপডেট: ২১-০৯-২০২২ ১৫:২৭

মাবুদ আজমী: ঢাকা ওয়াসার মোট পানির চাহিদার তিন ভাগ মেটানো হয় ভূ-গর্ভস্থ উৎস থেকে। মাত্র এক ভাগ পানি পাওয়া যায় ঢাকার চারটি শোধনাগার থেকে। অথচ ২০২১ সালের মধ্যে ভূ-উপরিভাগের পানি উৎপাদন ৭০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্য ছিল ওয়াসার। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভূগর্ভস্থ পানি বেশি উত্তোলন করায় রাজধানীতে পানির স্তর আশঙ্কজনক হারে নেমে গেছে। এতে পানি পাওয়ার নিশ্চয়তা যেমন কমছে, তেমনি বাড়ছে ভূমিকম্পের ঝুঁকি। 

গ্রাহকসেবার মান বাড়ানো, ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার কমানোসহ ২০১০ সালে একগুচ্ছ কর্মসূচি নিয়েছিল ঢাকা ওয়াসা। ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খানের ‘ঘুরে দাঁড়াও ঢাকা ওয়াসা’ কর্মসূচিতে ছিলো ভূগর্ভের পানির উপর নির্ভরতা কমিয়ে ২০২১ সালের মধ্যে ভূ-উপরিভাগের পানির উৎপাদন ৭০ শতাংশে উন্নীত করা। 

ঢাকা ওয়াসার হিসেবে দেখা যায়, গত এপ্রিল মাসে মোট ৭ হাজার ৯৬০ কোটি লিটার পানি উৎপাদন হয়েছে। এরমধ্যে ভূ-উপরিভাগের উৎস অর্থাৎ চারটি শোধনাগার থেকে পাওয়া গেছে ২ হাজার ৩শ’ কোটি ২৩ লাখ লিটার পানি। আর বাকি ৫ হাজার ৯৫৬ কোটি ৩৩ লাখ লিটার পানি উত্তোলন করা হয়েছে ভূগর্ভস্থ উৎস থেকে।

ঢাকা ওয়াসার পানি উৎপাদন চিত্র (ভূ-উপরিভাগ)

পানি শোধনাগার পানি উৎপাদনের পরিমাণ (লিটার)

ঢাকা ওয়াটার ওয়ার্কস ৩৫ কোটি ৬৪ লাখ 

সায়েদাবাদ ট্রিটমেনট প্ল্যান্ট-১ ৫৯০ কোটি ৮২ লাখ

সায়েদাবাদ ট্রিটমেনট প্ল্যান্ট-২ ৬১০ কোটি ৬১ লাখ 

পদ্মা জশলদিয়া ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট ৭৬৬ কোটি ১৬ লাখ

২০১০ সালে ঢাকা ওয়াসার মোট চাহিদার ৮০ শতাংশ মেটানো হতো ভূগর্ভস্থ উৎসের পানি দিয়ে। ২০২২ সালে এই পরিমাণ ৭৪ শতাংশে নেমেছে। একযুগে ঢাকা ওয়াসার ভূগর্ভস্থ পানির নির্ভরতা কমেছে মাত্র ৬ শতাংশ। 

ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চলে ৯২৩টি গভীর নলকূপের মাধ্যমে মাটির নিচ থেকে পানি তুলছে ওয়াসা। এর ফলে আশঙ্কাজনকহারে পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। তবে ওয়াসা ব্যবস্থাপনা পরিচালক এতে উদ্বেগেরে কিছু দেখেন না। ভূগর্ভস্থ পানির উপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে উপরিভাগের পানি ব্যবহারের তাগিদ দিলেন বিশেষজ্ঞরা। 

Azmi/sharif