অদ্ভুত নামে কয়েকটি দলের নিবন্ধন আবেদন

প্রকাশিত: ০৫-১১-২০২২ ১৫:৩২

আপডেট: ০৫-১১-২০২২ ১৫:৩৫

কাজী ফরিদ: নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত হতে যে ৯৩টি রাজনৈতিক দল আবেদন করেছে তাদের বেশকিছুর নাম অদ্ভুত। অনেক দল নিজেদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ঠিকানা দিয়েছেন ভুল, কোন দলের কার্যালয় ছিলো বন্ধ। কেউ বেড রুম কাম ড্রইং রুমই বানিয়েছেন কেন্দ্রীয় অফিস। কারো কেন্দ্রীয় অফিস চলছে আইনজীবীর চেম্বার থেকে। সবাই নিবন্ধন পাবার ব্যাপারে আশাবাদী হলেও ইসি বলছে সব শর্ত পূরণ না হলে নিবন্ধন নয়। 

এ বছরের মে মাসে নির্বাচন কমিশন গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনের জন্য আবেদন আহ্বান করে। অক্টোবরের ৩০ তারিখ আবেদন জমা দেয়ার শেষ দিন পর্যন্ত ৯৩টি দল নিবন্ধনের জন্য আবেদন জানিয়েছে।

নিবন্ধন চাওয়া দলগুলোর বিভিন্ন তথ্যের ফাইলের স্তুপ এখন ইসিতে। সেখান থেকে ঠিকানা সংগ্রহ করে কিছু রাজনৈতিক দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, গুলশান-বাড্ডা লিংক রোডের একটি ভবনে গণ রাজনৈতিক জোট-গর্জোর অফিস। কিন্তু ভবনের বাইরে বা ভেতরে কোথাও নেই দলের কোনো সাইনবোর্ড। টিভির ক্যামেরা দেখে দরজার সামনে সাইনবোর্ড লাগায় এক কর্মী। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দেখা যায় অন্য ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের অফিস।

তোপখানা রোডের আরেকটি ভবনে বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলনের কার্যালয় থাকার কথা, কিন্তু এখানে কার্যালয় পাওয়া যায়নি। যোগাযোগ করলে দলটির চেয়ারম্যান বলেন অফিস ছেড়ে দিয়েছেন তারা। 

একই ভবনে রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন নামে আরেকটি রাজনৈতিক দলের অফিস থাকলেও সেটা দুপুরে বন্ধ ছিলো। দলটির একজন নেতার সাথে যোগাযোগ করে অফিস বন্ধ কেন জানতে চাইলে তিনি রেগে যান। 

বাংলাদেশ জনমত পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ঠিকানায় গিয়ে দেখা যায় সেটি একআইনজীবীর চেম্বার। বাইরে বাংলাদেশ জাস্টিস এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির একটি ছোট সাইনবোর্ড আর ভেতরে বাংলাদেশ কর্মসংস্থান আন্দোলনের অফিস। দুটা রাজনৈতিক দলই একজনের। 

এদিকে, বাংলাদেশ বেকার সমাজ নামের রাজনৈতিক দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় চলছে সভাপতির ড্রইংরুমে। এখানে আছে খাট, কম্বল, বালিশ। 

এছাড়া মুশকিল লীগ, ইত্যাদি পার্টি, বৈরাবরী পার্টি, নাকফুল বাংলাদেশ, গরীব পার্টি, সৎ ও সংগ্রামী ভোটার পার্টির মতো বাহারী নামের দলও নিবন্ধনের আবেদন করেছে। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, সব শর্ত পূরণ না করলে নিবন্ধন দেয়া হবে না। বর্তমানে নিবন্ধিত আছে এমন কিছু দলের নামেও নতুনভাবে নিবন্ধন চেয়েছেন অনেকে।

KFA/sharif