গাছে বেঁধে ও চুল কেটে নারীকে নির্যাতন

প্রকাশিত: ০৭-১১-২০২২ ২২:৫০

আপডেট: ০৭-১১-২০২২ ২২:৫৩

যশোর সংবাদদাতা: যশোরে চুরির অপবাদ দিয়ে জহুরা বেগম (৫০) নামে এক নারীকে গাছে বেঁধে সারারাত মারধর এবং চুল কেটে দিয়েছে তার প্রতিবেশীরা। রোববার (৬ই নভেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে সদর উপজেলার দৌগাছিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সোমবার (৭ই নভেম্বর) বিকেলে ওই নারীকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

জহুরা বেগম উপজেলার দৌগাছিয়া গ্রামের সোহরাব হোসেনের স্ত্রী।

জহুরা বেগম অভিযোগ করেন, ‘নাতনির জন্য রাতে মসজিদের হুজুরের কাছ থেকে তেলপড়া আনতে যাই। সেখান থেকে ফেরার পথে একই এলাকার মুনসুরের বাড়ির পাশ দিয়ে আসার সময় মুনসুর ও তার ছেলে আলামিন বলেন, ‘তুই বাড়ির পাশ দিয়ে গেলেই বাড়িতে চুরি হয়।’  এনিয়ে তাদের সাথে কথা কাটাকাটি হয় জহুরার। এ সময় মনছুরের ছেলে আলামিন ও জাহিদুলের ছেলে রিয়াদ হোসেন তাকে চোর বলে আটক করে।

আটকের পর দড়ি দিয়ে বেঁধে মারপিট করতে থাকে কয়েকজন। পরে তার মাথার চুল কেটে দেয় তারা। ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাকে বেঁধে মারপিট করা হলেও উদ্ধারে কেউ এগিয়ে আসেনি বলে অভিযোগ করেন জহুরা বেগম ।

জহুরা বেগমের বোনের মেয়ে লাবনী আক্তার বলেন, ‘আমার খালা খুব অসহায় মানুষ। মানুষের বাড়িতে কাজ করে খায়। সে এ ধরনের কাজের সঙ্গে জড়িত না। মুনসুরের সঙ্গে পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণে আমার খালাকে নির্যাতন করা হয়েছে। আমরা এর বিচার চাই।’

যশোর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন, ‘পরিবারের পক্ষ থেকে এখনও কোনো অভিযোগ দেয়নি। ঘটনার বিষয়ে আমরা শুনেছি। খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

MBK/sat