ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে করলার আচার

প্রকাশিত: ০৮-১১-২০২২ ২২:৩৬

আপডেট: ০৮-১১-২০২২ ২২:৩৬

অনলাইন ডেস্ক: সবজি হিসেবে করলার গনাগুন কম নেই ৷ কিন্তু, করলার আচার খেলে কমতে পারে ডায়েবেটিসের মত সমস্যা ৷ দেহে  ইনসুলিনের মাত্রাও সঠিক রাখতে সাহায্য করে করলা ৷  করলায় নিউট্রিশনের পরিমান বেশি থাকায় পুষ্টিবিদরা রোজ করলা খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ৷ করলার আচারে একদম ভিন্ন একটি স্বাদ পাওয়া যাবে। তাহলে দেখে নেয়া যাক এই করলার আচার বানাবেন কী করে ?

উপকরণ:

করলার টুকরো: ৭-৮টি, ভিনিগার: এক চা চামচ এর বদলে( লেবুর রস ও ব্যবার করা যেতে পারে), সর্ষার তেল: পরিমাণ মতো, জিরা: ২ টেবিল চামচ, গরম মশলা: ১ চা চামচ, মেথি: ২ চা চামচ, লবন: স্বাদ মতো, মৗেরি: ৪ চা চামচ, বিট লবন: ১ চা চামচ, সর্ষা গুঁড়া: ২ টেবিল চামচ, শুকনো মরিচ গুঁড়া: ১ চা চামচ এবং হলুদ গুঁড়া: ১ চা চামচ

যেভাবে বানাবেন

প্রথমে করলার টুকরোগুলি ভাল করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে লবন মাখিয়ে রাখুন। লবন মাখানো করলা প্রায় ৫ মিনিট গরম পানিতে সেদ্ধ করে নিতে হবে। করলা  মোটামুটি সেদ্ধ হয়ে গেলে, সেদ্ধ করলাগুলি একটি পরিষ্কার কাপড়ে মুড়িয়ে রোদে রেখে দিন ৩-৪ ঘণ্টা।

এ বার একটি কড়াইয়ে তেল গরম করে তাতে জিরে, মেথি, সর্ষে ভেজে নিয়ে গুড় করে নিন। এরপর শুকনো করলার মধ্যে তৈরি করা ভাজা মশলা দিয়ে ভাল ভাবে মিশিয়ে নিতে হবে।

এ বার বাকি মশলাগুলো করলার সঙ্গে মিশিয়ে নিন। অল্প লবন দিন। লেবুর রস বা ভিনিগার দিন। সব উপকরণগুলি একসঙ্গে ভাল করে মিশিয়ে একটি কাঁচের বয়ামে ভরে রাখুন।

এরপর এই তৈরি হওয়া করলা ও মশলার মিশ্রণকে রোজ রোদে দিতে হবে। এক বার বানিয়ে রাখলে ১৫-২০ দিন পর্যন্ত খেতে পারবেন। ফ্রিজে রাখতে পারবেন। এতে নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা কম থাকবে। তবে ফ্রিজে রাখলে খাওয়ার অন্তত ঘণ্টাখানেক আগে বার করে রাখুন।

 

FR/shimul