আফগানিস্তানে শিশু হত্যার দায় স্বীকার যুক্তরাজ্যের

প্রকাশিত: ১০-১১-২০২২ ১০:৩৫

আপডেট: ১০-১১-২০২২ ১৫:২২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আফগানিস্তানে ২০০৬ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ বাহিনীর অভিযানে ৬৪ শিশু নিহত হয়েছে। এসব শিশুর গড় বয়স ছিলো ৬ বছর। যাদের অধিকাংশই বিমান হামলায় নিহত হয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক দাতব্য সংস্থা ‘অ্যাকশন অন আর্মড ভায়োলেন্স’ জানিয়েছে, আফগানিস্তানে হত্যার শিকার প্রতিটি শিশুর জন্য ক্ষতিপূরণ হিসেবে ১ হাজার ৬৫৬ পাউন্ড দিয়েছে ব্রিটিশ সরকার। এদিকে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর দেশটিতে সহিংসতাও অনেকাংশে কমেছে। 

২০০১ সালে আফগানিস্তানে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে যোগ দেয় যুক্তরাজ্যসহ ন্যাটো বাহিনী। এতে তালেবান ও আলকায়েদা জঙ্গি ও তাদের আস্তানা ধ্বংসের পাশাপাশি প্রাণ দিতে হয় অনেক বেসামরিক নাগরিককে। হামলা থেকে বাদ যায়নি, নিরীহ শিশু থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধরাও।

২০০৬ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে আফগানিস্তানে ব্রিটিশ সেনাদের হামলায় অন্তত ১৬ শিশু নিহত হয় বলে জানিয়েছিলো দেশটির সরকার। তবে শিশু হত্যার এই সংখ্যা চারগুণ বেশি বলে স্বীকার করেছে যুক্তরাজ্য। এজন্য ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৬৪টি শিশুর পরিবারকে সহায়তা দিয়েছে দেশটি। 

যুক্তরাজ্যভিত্তিক দাতব্য সংস্থা ‘অ্যাকশন অন আর্মড ভায়োলেন্সের’ এক প্রতিবেদন বলছে, হত্যার শিকার এসব শিশুর গড় বয়স ছয় বছর। বিমান হামলা এবং গুলিবিনিময়ের মধ্যে পড়েই মূলত এসব শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তাদের পরিবারকে ব্রিটিশ সরকার গড়ে ১ হাজার ৬৫৬ পাউন্ড করে ক্ষতিপূরণ দিয়েছে বলে জানিয়েছে দাতব্য সংস্থাটি।

তাদের ধারণা, ব্রিটিশ বাহিনীর হামলায় নিহত আফগান শিশুর প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি ১৩৫ জন পর্যন্ত হতে পারে। তবে একইসময় ৮৮১ বেসামরিক নাগরিক হত্যার দাবির অধিকাংশই প্রত্যাখ্যান করেছে যুক্তরাজ্য সরকার। যেখানে ২৮৯ আফগান বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর জন্য তারা মোট ৬ লাখ ৮৮ হাজার পাউন্ড ক্ষতিপূরণ দিয়েছে।

অন্যদিকে, তালেবান ক্ষমতা দখলের পর দেশটিতে সহিংসতা অনেকাংশে কমে গেছে। গেলো এক বছরে আফগানিস্তানে বেসামরিক লোকদের ওপর হামলার হার কমেছে ৫০ শতাংশের বেশি।

Mustafiz/sharif