নারায়ণগঞ্জে হত্যাকাণ্ড বাড়ায় উদ্বিগ্ন বাসিন্দারা

প্রকাশিত: ১৭-১১-২০২২ ০৮:১৮

আপডেট: ১৭-১১-২০২২ ১৪:৩১

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা: নারায়ণগঞ্জে একের পর এক খুন আর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের। চলতি বছর এই জেলায় ১৩১টি হত্যাকাণ্ড সংঘঠিত হয়েছে। যা অনাকাঙ্খিত বলে মনে করছে প্রশাসনও। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর আরও তৎপর ও দায়িত্ববান হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন নগরবাসী ও মানবাধিকার কর্মীরা। 

গত ৭ই নভেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের বনানী ঘাট এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের মরদেহ উদ্ধার করে নৌ-পুলিশ। রাজধানী থেকে নিখোঁজ হয় সে। তার মাথায় ও বুকে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। একইদিন বন্দর ও রূপগঞ্জে আরো তিনটি হত্যাকাণ্ড ঘটে। 

তার আগের দিনও চারজনের মরদেহ পাওয়া যায় বিভিন্ন স্থানে। এছাড়া ১২ই নভেম্বর ফতুল্লার পাগলা ঘাট এলাকা থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক দূরন্ত বিপ্লবের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক জানান, তারও মাথায় ও বুকে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

জেলা পুলিশ জানিয়েছে, চলতি বছরের ১০ই নভেম্বর পর্যন্ত জেলায় ১৩১টি হত্যার ঘটনা ঘটেছে। আর এর আগের বছর অন্তত ৯৬ জন হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। যাদের মধ্যে নারী ও শিশু রয়েছে। অধিকাংশ  মরদেহ পাওয়া গেছে শীতলক্ষ্যা ও বুড়িগঙ্গা নদী থেকে। জেলায় এতোগুলো হত্যাকাণ্ড চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে নগরবাসীর জন্য। 

এতগুলো প্রাণহানির ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও তৎপর হওয়ার পরামর্শ দিলেন মানবাধিকার কর্মীরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা বলছেন, অনাকাঙ্খিত এমন পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুলিশের পক্ষ থেকে নজরদারি বাড়ানোসহ নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। 

স্থানীয়রা বলছেন, শক্ত পদক্ষেপ না নিলে এলাকায় আতঙ্ক আরো বাড়বে, অবনতি হবে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির। 

lamia/sharif