হেমন্তেই প্রকৃতিতে শীতের আমেজ

প্রকাশিত: ১৮-১১-২০২২ ১৪:১০

আপডেট: ১৮-১১-২০২২ ১৫:৩৪

বিউটি সমাদ্দার: মধ্য হেমন্তেই প্রকৃতিতে এসেছে শীতের বার্তা। দিনে খুব একটা অনুভব না হলেও সন্ধ্যা আর শেষ রাতে ছড়িয়ে থাকে শীতের আমেজ। বাংলা বর্ষপঞ্জিতে পৌষ ও মাঘ এই দুই মাস শীতকাল। তবে তারও আগে প্রকৃতিতে হাজির হয় এই ঋতু। কুয়াশার চাদর ছড়িয়ে শীতের পরশ বুলিয়ে আগলে নেয় চারপাশ। শীতের আগমনীর এই রূপ অনেকের কাছেই প্রিয়। 

শেষ রাতের আঁধার কাটিয়ে আড়মোড়া ভেঙ্গে জেগে ওঠে গ্রামীণ জনপদ। ছোট্ট বাজারে চায়ের দোকানে জ্বলে উঠলো আলো। এক কাপ চায়ে চনমনে হয়ে ওঠে মন। হেমন্তের স্নিগ্ধ প্রকৃতির নিরবতা ভেঙ্গে কর্মচঞ্চল হয়ে ওঠে সবাই। কুয়াশাচ্ছন্ন সকালে মাঠে ছুটে চলে কৃষক।

পঞ্জিকার হিসেবে এখন ভরা অগ্রহায়ণ। পৌষের আগমনের এখনো অনেকটা সময় বাকি। প্রকৃতিতে উঁকি দিচ্ছে শীত। বাতাসে এখন হিম হিম আবেশ। ঘন কুয়াশার চাদরে আটকে পড়ে দৃষ্টি। কুয়াশার চাদর মাড়িয়ে পূব আকাশে যখন রক্তিম সূর্যের আবাহন, তখন অদ্ভুত এক মায়াবী আভায় ভরে ওঠে চারপাশ। এমনই স্নিগ্ধতায় মোড়ানো গ্রাম বাংলার শীতের সকাল। শীত মৌসুমের আনুষ্ঠানিক সূচনা না হলেও তার সৌন্দর্য ধরা দিচ্ছে দৃষ্টি সীমানায়।

শীতের আগমনে ঘাসের ডগায় জমে থাকা শিশির কনা ভোরের সোনাঝরা রোদে ঝিকমিক করে ওঠে। মাকড়শার জালে দোল খায় মুক্তাদানা। কুয়াশার ধবল চাদর গায়ে মেখে মাঠে নেমে পড়ে কৃষক। লাঙলের ফলায় পরমযত্নে মাটির বুক চিড়ে সোনা ফলাতে ব্যস্ত হয়ে উঠে। 

হেমন্তের হিমেল হাওয়ায় দোল খাওয়া সোনা রঙা ধানের ক্ষেতে যেন ঝরে পড়ে কৃষকের হাসি। সেই ধান কেটে ঘরে ফিরে চাষী। চিরায়ত বাংলায় শীতের আগমনের এ যেন এক অনবদ্য রুপ।

এদিকে, হিমেল পরশ গায়ে মেখে ঘরকন্যার কাজে মেতে ওঠে পল্লীবধূ। ধোঁয়া উঠা গরম ভাত আর ব্যঞ্জনে চলে সকালের আতিথেয়তা। ঘরে ঘরে তৈরি হয় পিঠাপুলি। ঢেঁকির ছন্দে চলে নতুন চালের গুড়ি কোটা। ভাঁপাপিঠা, পুলি, পাটিশাপটা, চিতই কতই না আয়োজন।

ধীরে ধীরে প্রকৃতিতে জেঁকে বসছে শীত। দিনের বেলায় খুব একটা অনুভূুত না হলেও সন্ধ্যা নামার পর থেকে ভোর পর্যন্ত ঠিকই টের পাওয়া যায়। শহুরে জীবনে এখনও শীতের খোঁজ তেমন না পেলেও গ্রামীণ জনপদ এরই মধ্যে পেয়ে গেছে শীতের আগমনী বার্তা।

BRS/sharif