নারায়ণগঞ্জে বাসাবাড়ির ছাদে বনসাই রাজ্য

প্রকাশিত: ০১-১২-২০২২ ০৮:৪৯

আপডেট: ০১-১২-২০২২ ০৯:০৮

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা: দেশি-বিদেশি বিলুপ্ত প্রজাতির নানা গাছে ভরপুর নারায়ণগঞ্জের এক চিকিৎসক দম্পতির ছাদ বাগান। ছাদজুড়ে সবুজের সমারোহ। ছাতিম, হিজল, অশোক,তমাল কী নেই! তবে বিরাট বৃক্ষ নয়, সব গাছ সংরক্ষণ করা হয়েছে বনসাই আকারে। এসব বনসাই বিক্রি করা হয়না, শুধুমাত্র সবুজায়নের জন্যই সংরক্ষণ করছেন এই দম্পতি।  

নারায়ণগঞ্জে সিদ্ধিরগঞ্জের নিমাইকাসারী এলাকায় পাঁচ তলা বাড়ির ছাদে বাগান গড়ে তুলেছেন চিকিৎসক মাহফুজা আক্তার এলিজা ও তার স্বামী ফয়েজ আহমেদ। ২০১৫ সালে সন্তানদের সাথে প্রকৃতির সম্পর্ক আরো দৃঢ় করতে ছাদে বাগান করেন তারা। 

চিকিৎসক দম্পতি জানান, তাদের ছাদ বাগানে কয়েক হাজার বনসাই রয়েছে। ফুল, ফলসহ ঔষধী গাছও সংরক্ষণ করেছেন তারা। গাছগুলোর মধ্যে আছে ছাতিম, হিজল, তমাল, অশোক, নাগলিঙ্গম, আফ্রিকানবটবৃক্ষ, এডেনিয়ামর। তাছাড়া, কামিনী, করবী, ক্যামেলিয়া, কাঠমালতী, রঙ্গন, জুঁই ও টগর সুবাস ছড়াচ্ছে ১৮ শত বর্গফুটের এই ছাদে। 

এসব গাছের বয়স ১ থেকে ৩০ বছর পর্যন্ত। বাগানটিতে ১০ হাজার থেকে শুরু করে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত দামের বনসাই রয়েছে। তবে এসব গাছ বিক্রি করা হয়না। বাগানটি এখন স্থানীয়দের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই বাগান দেখার জন্য জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে ভিড় করে প্রতিদিন।

শুধু পরিবেশ রক্ষা নয়, বনসাই এর বাগান করে আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী হওয়া সম্ভব বলে জানালেন জেলা কৃষি কর্মকর্তা। নারায়ণগঞ্জের পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো মনে করেন, ঘরে-বাইরে এ ধরণের বাগান করা হলে পরিবেশের ভারসাম্য সৃষ্টি হবে। 

Priyonty/sharif